ঢাকা মহানগরী পূর্ব

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির

সংক্ষিপ্ত বিবরন: ১৯৭১ সালে দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের মধ্যদিয়ে আমরা পেয়েছি একটি লালসবুজের পতাকা আর পৃথিবীর মানচিত্রে নতুন অভ্যুদয় হয়েছিল সোনার বাংলাদেশ। কিন্তু সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার যে স্বপ্ন নিয়ে আমাদের যাত্রা শুরু হয়েছিল তা আর আলোর মুখ দেখতে সার্মথ হয়নি। এক পর্যায়ে আমরা হারালাম আমাদের রাজনৈতিক অধিকার ও বাকস্বাধীনতা। অর্থনৈতিক মুক্তির যে স্লোগান আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করেছিল স্বাধীনতা উত্তর তা আমাদের অধরাই রয়ে গেল । শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস, রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা, বিদ্ধস্ত অর্থনীতি, বাকশালী একনায়কতন্ত্র, নতুজানু পররাষ্ট্রনীতি, ইসলামী রাজনীতি নিষিদ্ধ করা সহ বহুমুখি চক্রান্তে মেতে উঠে তৎকালিন শাসকগোষ্ঠী। সন্ত্রাস, চাদাবাজী, ছিনতাই, রাহাজানি , টেন্ডারবাজি, ব্যাংক ডাকাতি, অপহরণ, মুক্তিপণ আদায় নিত্য নৈমত্তিক ব্যাপাওে পরিনত হয়। গনতন্ত্ররের স্লোগানধারী, ধর্মনিরপেক্ষতার নেবাসে প্রগতির কথা বলে জনগণকে সন্ত্রাসের জালে আবদ্ধ করে ফেলে।এদেশের ছাত্রসমাজ যখন সহস্র সমস্যার গহিন আধারে নিমজ্জিত তখনই প্রভাতের সোনালী আলোয় উদ্ভাসিত করে সৎ,দক্ষ, ও দেশপ্রেমিক নাগরিক তৈরির লক্ষে ১৯৭৭ সালের ৬ ই ফ্রেবুয়ারী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ থেকে যাত্রা শুরু করে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।

লক্ষ্য-উদ্দেশ্য

আলাহ প্রদত্ত ও রাসূল (সা.) প্রদর্শিত বিধান অনুযায়ী মানুষের সার্বিক জীবনের পুনর্বিন্যাস সাধন করে আলাহর সন্তোষ অর্জন।

আমাদের ভিশন

সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সৎ, দক্ষ ও দেশপ্রেমিক নাগরিক তৈরি।

৫ দফা কর্মসূচী

আলাহর সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে দ্বীন কায়েমের লক্ষ্যে ছাত্রশিবির ঠিক করেছে পাঁচ দফা কর্মসূচি। বিজ্ঞানসম্মত এ সব কর্মসূচীর উপর ভিত্তি করেই পরিচালিত হচ্ছে ছাত্রশিবিরের সকল কার্যμম। কর্মসূচিগুলো হলো :

দাওয়াত

এক দাওয়াত : তরুণ ছাত্রসমাজের কাছে ইসলামের আহবান পৌঁছিয়ে তাদের মাঝে ইসলামী জ্ঞানার্জন এবং বাস্তব জীবনে ইসলামের পূর্ণ অনুশীলনের দায়িত্বানুভূতি জাগ্রত করা।

সংগঠন

এক দাওয়াত : তরুণ ছাত্রসমাজের কাছে ইসলামের আহবান পৌঁছিয়ে তাদের মাঝে ইসলামী জ্ঞানার্জন এবং বাস্তব জীবনে ইসলামের পূর্ণ অনুশীলনের দায়িত্বানুভূতি জাগ্রত করা।

প্রশিক্ষণ

এক দাওয়াত : তরুণ ছাত্রসমাজের কাছে ইসলামের আহবান পৌঁছিয়ে তাদের মাঝে ইসলামী জ্ঞানার্জন এবং বাস্তব জীবনে ইসলামের পূর্ণ অনুশীলনের দায়িত্বানুভূতি জাগ্রত করা।

ইসলামী শিক্ষা আন্দোলন ও ছাত্র সমস্যা সমাধান

এক দাওয়াত : তরুণ ছাত্রসমাজের কাছে ইসলামের আহবান পৌঁছিয়ে তাদের মাঝে ইসলামী জ্ঞানার্জন এবং বাস্তব জীবনে ইসলামের পূর্ণ অনুশীলনের দায়িত্বানুভূতি জাগ্রত করা।

ইসলামী সমাজ বিনির্মাণ

এক দাওয়াত : তরুণ ছাত্রসমাজের কাছে ইসলামের আহবান পৌঁছিয়ে তাদের মাঝে ইসলামী জ্ঞানার্জন এবং বাস্তব জীবনে ইসলামের পূর্ণ অনুশীলনের দায়িত্বানুভূতি জাগ্রত করা।

মুক্তিকামী মানুষের কাফেলা

দেশের প্রতিটি জনপদ জুড়ে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির কাজ করে যাচ্ছে তার বিশাল কর্মী বাহিনী নিয়ে। শিবির একজন তরুণকে একই সাথে একজন ভাল ছাত্র ও একজন ভাল মুসলমান হিসেবে গড়ে তুলতে চেষ্টা করছে। ব্যক্তিগত রিপোর্টে পাঠ্য বই পড়ার ও ক্লাসে উপস্থিতির হিসেব রাখার ব্যবস্থা করে শিবির তার কর্মীদের ভাল ছাত্র হতে আগ্রহী করে তোলে। ইসলাম যেমন সকল মানুষের কল্যাণের জন্য তেমনি ইসলামী ছাত্রশিবিরও মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান সবার কাছে ইসলামকে সুন্দরভাবে তুলে ধরার কর্মসূচী নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। তাই এই সুন্দর কর্মসূচী ও চরিত্রবান কর্মীদের প্রতি দিন দিন জনসমর্থন বাড়ছে। আসুন, আপনিও শিবিরের পতাকাতলে সমবেত হয়ে নিজেকে গড়ে তুলুন সুন্দর ও যোগ্যতম ব্যক্তি হিসেবে। শরিক হোন ইহকাল ও পরকালের মুক্তিকামী মানুষের এই কাফেলায়।

_ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _ _

সমর্থক হোন

আমি বিশ্বাস করি যে, ইসলামই আল্লাহর মনোনীত দ্বীন বা জীবন-ব্যবস্থা এবং এর অনুসরণের মধ্যেই মানব জীবনের ইহকালীন কল্যাণ ও পরকালীন মুক্তি নিহিত রয়েছে। এ উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র শিবির যে কর্মসূচী গ্রহন করেছে আমি তার সাথে সচেতনভাবে একমত হয়ে এ সংগঠনকে সমর্থন করছি

নাম, ইমেইল, ঠিকানা ও মন্তব্য অবশ্যই লিখতে হবে।